বাতের ব্যথা থেকে মুক্তি পাবার ঘরোয়া উপায়

১. আদা চা : ব্যথায় কাতরাচ্ছেন। চিন্তা নেই। পানিতে আদা কুচি, চা পাতা দিয়ে ১৫ মিনিট ধরে ফুটিয়ে সেই চা পান করুন। দুধ দিয়েও আদা চা করে খেতে পারেন। সাময়িক ভাবে ব্যথার থেকে রেহাই পাবেন। এ ক্ষেত্রে জিনজার টি-ব্যাগও ব্যবহার করতে পারেন।

২. জাঙ্ক ফুড একদম নয় : যে কোন রকম ভাজাভুজি, জাঙ্ক ফুড বা প্যাকেট জাত খাবার এড়িয়ে চলুন। সম্প্রতি এক সুইডিস গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, যারা মশলাদার খাবার ছেড়ে বেশি পরিমাণে টাটকা সবজি, ফলমূল, মাছ, অলিভ তেল খান, তাদের বাত হওয়ার প্রবণতা অনেক কম।

৩. ঘরোয়া মিশ্রণ : ব্যথা কমাতে ঘরেই বানিয়ে নিতে পারেন একটা সহজ মিশ্রণ। কয়েক চামচ মরিচ গুড়োর সঙ্গে ২-৩ চামচ অলিভ তেল। এটা অনেক প্রাচীন দেশজ পদ্ধতি। এই মিশ্রণ লাগানোর পর প্রথমে খুব জ্বালা হবে, কিন্তু ধীরে ধীরে এক সপ্তাহের মধ্যে ব্যথা অনেক কমে যাবে।

৪. নিজের হাতে বাসন ধোবেন : হাতের ব্যথায় নাকাল হচ্ছেন? আজ থেকেই নিজের হাতে বাসন ধুতে শুরু করুন। অদ্ভুত লাগলেও, এই পদ্ধতিতে আপনার হাতের ব্যায়াম হবে। আরও ভাল হয় যদি, উষ্ণ গরম পানিতে এই কাজ করেন। এতে হাতের জড়তা অনেক কেটে যাবে।

৫. সাঁতার কাটুন : বাতের ব্যথায় সবচেয়ে ভাল ব্যায়াম সাঁতার। পানির মধ্যে ভারশূন্যতা পেশীর চাপ কমিয়ে দেয়। তাইওয়ানের এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে, সাঁতার হাঁটু এবং নিতম্বের জোর বাড়ায়। শরীরের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। ব্যথা অনেক কমিয়ে দেয়।

৬. গ্রিন টি : কেস ওয়েস্টার্ন রিসার্ভ ইউনিভার্সিটির গবেষণায় দেখা গিয়েছে, দিনে চার কাপ গ্রিন টি বাতের ব্যথা কমাতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নেয়। চায়ের মধ্যে রয়েছে, পলিফেনল অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট যা ব্যথা ও পেশি বাত, অস্টিওআর্থারাইটিস কমাতে সাহায্য করে।

৭. ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড : রুই, টুনা, স্যামন মাছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে। এই ফ্যাটি অ্যাসিড পেশির শক্তি বাড়ায়। চিকিৎসকেরা বলছেন, সপ্তাহে খাদ্য তালিকায় বেশি পরিমাণ টাটকা মাছ রাখুন। এতে পেশি ব্যথায় আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা কমবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Personel Sağlık

- seo -

istanbul avukat